1. ajohirrayhan@gmail.com : Fozlu :
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
কুমিল্লার পূজা মন্ডপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মৌলভীবাজারের রাজনগরে পিটিয়ে একজনকে আহত। মৌলভীবাজারে তালামীযে ইসলামীয়ার উদ্যোগে আলোচনা সভা ও মুবারক র‌্যালি অনুষ্ঠিত। একটি হারানো বিজ্ঞপ্তি – গাড়ির কাগজ হারানো গিয়েছে। সুলতানপুর মিনিবার ফুটবল টুর্নামেন্ট সিজন ৪ এ চ্যাম্পিয়ন মান্না ফাইটার্স রানার্সআপ ইউসুফ থান্ডার্স মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের আয়োজনে পালিত হলো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস শেরপুর হাইওয়ে থানা পুলিশের আয়োজনে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত মাদকদ্রব‌্য নিয়ন্ত্রণ অ‌ধিদপ্তর মৌলভীবাজার এর  অভিযানে গাঁজা সহ নারী আটক। মৌলভীবাজারে একাধিক মাদক মামলার আসামী জনি ফকির ৩৫ পিছ ইয়াবা সহ গ্রেফতার শেরপুর হাইওয়ে থানার উদ্যোগে গাড়ি চালক ও হেলপারদের নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্টিত মৌলভীবাজারে যথাযোগ্য মর্যাদায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত।

গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর আর নেই

Reporter Name
  • সময়ঃ শুক্রবার, ২৩ জুলাই, ২০২১
  • ১৪৮ ভিউ

অনলাইন ডেস্কঃ একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা ও গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর আর নেই। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইউনাইটেড হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে ভেন্টিলেশনে থাকা অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর।

ফকির আলমগীরের ছেলে মাশুক আলমগীর রাজীব বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শুক্রবার রাত ১০টার দিকে ভেন্টিলেশনে থাকা অবস্থায় ফকির আলমগীরের হার্ট অ্যাটাক হয়। পরে রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

এর আগে শুক্রবার বিকেলে তার বাবার শারীরিক আপডেট জানিয়ে রাজীব জানিয়েছিলেন, ফকির আলমগীরের শারীরিক অবস্থা কিছুটা উন্নতি হয়েছে। অক্সিজেন স্যাচুরেশন শতভাগ। চিকিৎসক জানিয়েছেন, শিল্পীর ডান ফুসফুস সংক্রমণমুক্ত হয়েছে। বাম ফুসফুস এখনও ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধ করছে। এ কারণে একটু শরীর ডানদিকে নিলে অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৭৫ এ নেমে আসে।

এর আগে জানা গিয়েছিল, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রক্তে ও ফুসফুসে ইনফেকশন পাওয়া যায়। এর দলেপ্রায় প্রতিদিন সকালে জ্বর আসতে থাকে। শুক্রবার নতুন অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে রাতে আবারও অবস্থার অবনতি হয় শিল্পীর। অবশেষে করোনার কাছে হার মানতে হলো একাত্তরের এই কণ্ঠযোদ্ধাকে।

গত ১৫ জুলাই করোনা শনাক্ত হয় ফকির আলমগীরের। ওইদিন রাত ১টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে কোভিড ইউনিটে ভর্তির পরপরই তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ষাটের দশক থেকে গণসংগীতের সঙ্গে যুক্ত ফকির আলমগীর ক্রান্তি শিল্পী গোষ্ঠী ও গণশিল্পী গোষ্ঠীর সদস্য হিসেব ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে শামিল হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে।

৭১ বছর বয়সী এ শিল্পী স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে দেশজ সুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপ গানের বিকাশে ভূমিকা রাখেন। সংগীতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সরকার ১৯৯৯ সালে ফকির আলমগীরকে একুশে পদকে ভূষিত করে।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে তার কণ্ঠের বেশ কয়েকটি গান দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। এর মধ্যে ‘ও সখিনা’ গানটি এখনও মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

তিনি সাংস্কৃতিক সংগঠন ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠী প্রতিষ্ঠাতা, গণসংগীত চর্চার আরেক সংগঠন গণসংগীত শিল্পী পরিষদের সাবেক সভাপতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করা ফকির আলমগীর গানের পাশাপাশি লেখালেখিও করেন।

এই পোস্টটি সোশাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ দেখুন
এই ওয়েবসাইট ডিজাইন করেছেন Johir Rayhan
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )