1. ajohirrayhan@gmail.com : Fozlu :
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
কুমিল্লার পূজা মন্ডপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মৌলভীবাজারের রাজনগরে পিটিয়ে একজনকে আহত। মৌলভীবাজারে তালামীযে ইসলামীয়ার উদ্যোগে আলোচনা সভা ও মুবারক র‌্যালি অনুষ্ঠিত। একটি হারানো বিজ্ঞপ্তি – গাড়ির কাগজ হারানো গিয়েছে। সুলতানপুর মিনিবার ফুটবল টুর্নামেন্ট সিজন ৪ এ চ্যাম্পিয়ন মান্না ফাইটার্স রানার্সআপ ইউসুফ থান্ডার্স মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের আয়োজনে পালিত হলো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস শেরপুর হাইওয়ে থানা পুলিশের আয়োজনে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত মাদকদ্রব‌্য নিয়ন্ত্রণ অ‌ধিদপ্তর মৌলভীবাজার এর  অভিযানে গাঁজা সহ নারী আটক। মৌলভীবাজারে একাধিক মাদক মামলার আসামী জনি ফকির ৩৫ পিছ ইয়াবা সহ গ্রেফতার শেরপুর হাইওয়ে থানার উদ্যোগে গাড়ি চালক ও হেলপারদের নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্টিত মৌলভীবাজারে যথাযোগ্য মর্যাদায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত।

মৃত্যুর পথযাত্রীকে হসপিটাল না নিয়ে ভিডিও ধারণ প্রসঙ্গে শ্রীমঙ্গল থানার স্টেটাস। 

Reporter Name
  • সময়ঃ সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১
  • ১৫৫ ভিউ

শ্রীমঙ্গল থানার অফিসিয়াল ফেইসবুক আইডি থেকে নেওয়া।

কি করা উচিত, কি করা উচিত নয়!

এরই মধ্যে অনেক কিছু ঘটে গেছে। শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ খুনের আসামী সজীব কে গ্রেফতার করে এবং বিজ্ঞ আদালতে তাকে প্রেরন করা হয়। একজন প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মী বিজ্ঞ আদালতে স্বেচ্ছায় তার জবানবন্দী প্রদান করেন।তাকে সাধুবাদ জানাই।এই ঘটনার প্রেক্ষিতে মামলা তদন্তাধীন।এ বিষয়ে কিছু বলা সমীচীন নয় তবে এর বাইরে কিছু ব্যাপার আছে সেগুলু নিয়ে কিছু কথা বলা প্রয়োজন।কথাগুলু কারো পক্ষে কিংবা বিপক্ষে যেতে পারে।

আমরা সবসময় কি সকল কাজ এবং ঘটনার জন্য সঠিক সিদ্বান্ত নিতে পারি? কিংবা নিয়েছি আদৌ?
বাস্তবতা খুবই কঠিন।

আসলে কোন দূর্ঘটনা ঘটলে সাধারন মানুষ দ্বিধাদন্দে পড়ে যান,অনেকেই ভাবেন থাক বাবা এটা পুলিশের কাজ,ঝামেলায় জড়িয়ে লাভ নাই।

অনেকেই সঠিক কাজটি করে থাকেন যেমন পুলিশকে ফোন দেওয়া,ভিকটিম কিংবা রোগীকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া,আহতদের কোন সাহায্য লাগলে সাহায্য করা ইত্যাদি ইত্যাদি।

কাজের বাইরে কিছু অকাজও ঘটে থাকে যেমন ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা ভিকটিমের মোবাইল বা মানিব্যাগ লোকিয়ে ফেলা।ভিকটিম কে সাহায্য না করা।আহত ব্যাক্তিকে গাড়িতে না তুলা ইত্যাদি ইত্যাদি।

এর বাইরে কিছু শ্রেনীর মানুষ আছেন যেমন নিরব দর্শকের ভুমিকা পালন করা,রাস্তায় অযথা দাঁড়িয়ে থেকে যানজট সৃষ্টি করা কিংবা অগত্যা পুলিশের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকা।

সাম্প্রতিক সময়ে মোবাইলের অপব্যবহার এবং তা সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচার করার প্রতিযাগীতা সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছে।যেকোন ঘটনা কিংবা দূর্ঘটনা ঘটলে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য হিসাবে পরবর্তী প্রমানের জন্য আমরাও সেটি ধারন করি।প্রযুক্তির কল্যানে অনেকেই এটা করেন।

কিন্তু ধারন করা এবং প্রচার করার স্বাধীনতা থাকার পাশাপাশি সেগুলু সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচারের ক্ষেত্রে রাষ্ট্র কিছু আইন,নিয়ম রেখেছেন সেগুলু মানা উচিত।
কোন গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালানের ক্ষেত্রেও মোবাইল লাইভ বিড়ম্বনা সৃষ্টি করে।যিনি সংবাদ কর্মী তিনি তার সংবাদের জন্য লাইভ করতেই পারেন কিন্তু যিনি কোন ঘটনার সংশ্লিষ্টটা নেই তিনি যখন লাইভ করেন তখন বুজতে হবে তার উদ্দেশ্য খারাপ।

সবার উদ্দেশ্য যে খারাপ তাও না,কেউ কেউ এটা ফেসবুকে ছেড়ে দিয়ে লাইক শেয়ার পান।শুধুমাত্র লাইক শেয়ার পাওয়ার উদ্দেশ্যই আমাদের অনেক বড় বিপদে ফেলে দেয়।আপনার প্রচার করা ভিডিও সমাজে কি কি প্রভাব ফেলতে পারে আপনি ঘুনাক্ষরেও আচ করেন না।

প্রশ্ন আসতে পারে আমার মোবাইল আমি যা ইচ্ছা তাই করবো।ভালো কথা আপনার ধারন করা ভিডিও শেয়ার হওয়ার পর সমাজে যে বিশৃংখলা সৃষ্টি হয় তার দায়ভার কি আপনি নেন বা নিবেন।

পরিশেষ- যিনি মোবাইলে মৃত্যুপথযাত্রীর অন্তিম সময়ের স্বীকারোক্তীর ভিডিও ধারন করেছেন তিনি আমাদের কাজ কিছু সহজ করেছেন বৈকী।এর বাইরে তিনি সহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা জন সাধারনের আরো বেশি কিছু নৈতিক দায়িত্ব ছিলো।আহত ব্যাক্তিকে হাসপাতাল নেওয়া কিংবা হত্যাকারীকে আটকানোর চেস্টা করা। ভয়ে হোক,কিংকর্তব্যপরায়নতায় হোক সকল সময় সঠিক কাজ করা হয়ে উঠেনা।

মোঃ হুমায়ুন কবির
পুলিশ পরিদর্শক( তদন্ত)
শ্রীমংগল থানা

এই পোস্টটি সোশাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ দেখুন
এই ওয়েবসাইট ডিজাইন করেছেন Johir Rayhan
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )